সারাদেশ

নিউজ ডেস্ক:  ধোবাউড়ায় প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত উন্নয়ন বিষয়ক সভায় জনপ্রতিনিধি, উপজেলা প্রশাসন কর্মকর্তা, শিক্ষক, অভিভাবক ও সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো: খলিলুর রহমান।

আজ সকাল ১১ টায় ধোবাউড়ায় প্রাথমিক শিক্ষার গুণগতমান উন্নয়ন বিষয়ক মতমিনিময় সভা উপজেলা পরিষদ চত্বরের মুক্তমঞ্চে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহদী হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার আন্জু আরা বিথী।

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী মোহাম্মদ মজনু মির্ধা, ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল হোসেন খান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা খাতুন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফরিদা ইয়াছমিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রিয়তোষ বিশ্বাস বাবুল, অফিসার ইনচার্জ শওকত আলম পিপিএম। অনুষ্ঠার পরিচালনা করেন সহকারী শিক্ষা অফিসার ওমর ফারক।

জেলা প্রশাসক শিক্ষার গুণগতমান উন্নয়নে সভায় উত্থাপিত সমস্যাসমূহ সমাধানকল্পে সর্বোচ্চ গুরুত্বের সাথে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘ধোবাউড়ার প্রতি আমার সুনজর রয়েছে; এবারের বন্যায় সর্বোচ্চ বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের কৃষি পূণর্বাসনের ব্যবস্থা  করার পাশাপাশি অচিরেই নিতাই নদীর কালিকাবাড়ী বেড়ীবাঁধের কাজও শুরু হবে।’

মতবিনিময় সভার আগে জেলা প্রশাসক আকস্মিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পরিবারের মাঝে আর্থিক অনুদানের  চেক বিতরন করেন।

এছাড়াও তিনি নিয়মিত পরিদর্শনের অংশ হিসেবে ধোবাউড়া উপজেলার অন্তর্গত একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের অধীনে আয়লাতলী গ্রাম উন্নয়ন সমিতি, গোয়াতলা ইউনিয়ন পরিষদ, গোয়াতলা ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এবং ৩ নং ধোবাউড়া ইউনিয়নের অন্তর্গত তারাকান্দি কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন করেন।Photo100

স্টাফ রিপোর্টার: আজ শনিবার বেলা ১১টায় ধোবাউড়া উপজেলার ৪নং পোড়াকান্দুলিয়া ইউনিয়নের নিদয়া বিলে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মাহদী হাসান। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সময় ১০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল সহ দুইজন জেলেকে আটক করা হয়। অতঃপর পোড়াকান্দুলীয়া বাজার নদীর পাড়ে জাল পুড়িয়ে দিয়ে উদয়পুর গ্রামের জেলে জালাল উদ্দিন (৫০) কে ৪ হাজার টাকা ও মিয়া হোসেন (৪০) কে ১ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়। এ সময় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা হুুমায়ন কবীর, ইউপি চেয়ারম্যান স্বপন তালুকদার, এসআই মাহমুদুল হাসান মন্ডল উপস্থিত ছিলেন।Photo curent Net

স্টাফ রিপোর্টার : প্রতিবছর বাংলাদেশে বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনায়  প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর সম্প্রতি সারাদেশে বজ্রপাত নিরোধক হিসাবে কাবিখা- টিআর কর্মসূচির আওতায় শনিবার সকাল ১০ টায় ধোবাউড়া উপজেলায় গ্রামীণ রাস্তার দুই পাশে ২হাজার ৮শত তালগাছের চারা রোপন কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাহদী হাসান। ধোবাউড়া উপজেলা প্রশাসন ও দুর্যোগ ব্যবস্থা অধিদপ্তরের উদ্যোগে সদর ইউনিয়নের ধোবাউড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ হতে দর্শা রাস্তায় তালগাছ রোপন করে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এসময় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুহ: জাকির হোসেন, উপ সহকারী প্রকৌশলী মজনু মিয়া, বাঘবেড় ইউপি চেয়ারম্যান ফরহাদ রব্বানী সুমন ও সদর ইউপি সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। পরে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে সাতটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মাঝে প্রকল্পের নির্দেশনা মোতাবেক লাগানোর জন্য সংগৃহীত তালগাছের চারা বিতরন করা হয়।

স্টাফ রিপোর্টার: ধোবাউড়ায় শুরু হয়েছে ফলদ বৃক্ষমেলা । আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টায় এ উপলক্ষ্যে ধোবাউড়া উপজেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য র‌্যালী উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে উপজেলা পরিষদ মুক্তমঞ্চে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ধোবাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মাহদী হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কৃষকলীগ সভাপতি হাজ্বী মোহাম্মদ মজনু মির্ধা। আলোচনা সভার পূর্বে ফিতা কেটে বৃক্ষ মেলার শুভ উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি। বিশেষ অতিথি হিসেবে ধোবাউড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল হোসেন খান ও নাছিমা খাতুন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব ইয়াকুব আলী খান, সাধারণ সম্পাদক প্রিয়তোষ বিশ্বাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন, ধোবাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শওকত আলম পিপিএম, কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান ইমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি অফিসার মো: মনিরুজ্জামান। মেলায় বরাবরের মতো এবারও ভূট্টা রফিকের দোকানে দর্শনার্থীদের ভীড় লক্ষণীয়।

স্টাফ রিপোর্টার: আজ সকাল ১১টায় ধোবাউড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে মায়ানমারের রোহিঙ্গাদর নির্বিচারে হত্যা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সম্মিলিত উলামা পরিষদের আয়োজনে বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে হাজার হাজার মানুষ এ সমাবেশে অংশগ্রহন করে।misil 1 সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ধোবাউড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কৃষকলীগ সভাপতি হাজ্বী মোহাম্মদ মজনু মির্ধা, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট আব্দুল মান্নান আকন্দ, সাধারণ সম্পাদক প্রিয়তোষ বিশ্বাস বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান ও শওকত উসমান, ধোবাউড়া আদর্শ কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মোতালিব আকন্দ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল হোসেন খান, বাইতুল হামদ একাডেমীর অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা আশরাফ আলী, চান্দেরনগর মাদ্রাসার মোহতামিম মাওলানা আবুল কাশেম, ধোবাউড়া কোর্ট মসজিদের ইমাম মো: আজিজুল হক, ধোবাউড়া মহিলা কলেজের প্রভাষক মো: জহিরুল ইসলাম, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, ইসলামী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সমাবেশ শেষে মায়ানমারের গনহত্যা বন্ধ ও অং সাং সূচির ফাসিঁর দাবীতে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

স্টাফ রিপোর্টার:: ধোবাউড়া উপজেলায় পরপর দুটি পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট নদীভাঙ্গনে পানিতে তলিয়ে গেছে বহু কৃষকের স্বপ্নের আমন ফসল। কৃষকের এ করুণ দশা স্বচক্ষে দেখতে আজ বিকেলে ধোবাউড়া উপজেলায় আসেন জেলা ত্রাণ ও পূণর্বাসন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেন। তিনি বন্যায় প্লাবিত হওয়া ধোবাউড়া সদর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম এবং গামারীতলা ইউনিয়নের সবচেয়ে বড় নদীভাঙ্গণ গোনাপাড়া বেড়ীবাঁধ পরিদর্শন করেন।News Photo Dhobaura 2 এ সময় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুহাঃ জাকির হোসেন, উপ- সহকারী প্রকৌশলী মজনু মিয়া, দক্ষিন মাইজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক, গামারীতলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান, প্রেসক্লাব সেক্রেটারী সিরাজুল ইসলাম, প্রভাষক সুলতান মামুন রতন ও সাংবাদিক কবির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

Exif_JPEG_420

গত দুইদিন ধরে নিতাই নদীতে পাহাড়ী ঢলে ঘোষগাঁও ইউনিয়নের জিগাতলা, ভূয়াপাড়া, ঘোষগাঁও, ভালুকা পাড়া রাইপুর গ্রাম এবং দক্ষিন মাইজ পাড়া ইউনিয়নে কালিকা বাড়ী বল্লবপুর নয়াপাড়া, দিগলবাগ, পঞ্চনন্দপুর, সোহাগীপাড়া ও খাগগড়া গ্রাম, গামারীতলা ইউনিয়নের মন্দিরকোনা, গৌরিপুর, কৃষ্ণপুর, লাঙ্গলজোড়া, চকপাড়া, রামনাথপুর, ঢালারপাড়, গামারীতলা, রনসিংহপুর পোড়াকান্দুলীয়া ইউনিয়নের বতিহালা বেতগাছিয়া, বহরভিটা, কাওয়ারকান্দা, পাতাম ও গুঙ্গিয়াজুরি গ্রাম, ধোবাউড়া সদর ইউনিয়নে বলরামপুর, বাঘড়া, ধাইরপাড়া, সিন্ধুরা, ভূট্টা, দর্শা,পঞ্চনন্দপুর, বিলপাড়, তারাইকান্দি, মন্থনী ও ধোবাউড়া গ্রামের আংশিক প্লাবিত হয়েছে। এতে সদ্য রোপনকৃত আমন ধানের ছাড়া ব্যাপকভাবে ক্ষতি সাধিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। গত শনিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ভারপ্রাপ্ত) ফরিদা ইয়াছমিন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুহাঃ জাকির হোসেন নতুন করে প্লাবিত হওয়া এলাকা পরিদর্শন করেছেন। ফসলী জমি তলিয়ে কৃষকের আহাজারী আর কান্না দেখার কেউ নেই। কৃষি বিভাগ নির্বিকার। অন্যদিকে ধোবাউড়া উপজেলায় দুর্যোগ মুহুর্তে সরকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ কর্মস্থলে না থাকায় প্রশাসনের তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছেনা। দক্ষিন মাইজপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফজলুল হক ও গামারীতলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান জানান, তাদের ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তারা গত ১১ আগস্ট ও বর্তমানের বন্যায় নিতাই নদীর বেড়ীবাঁধ ও পাড় ভেঙ্গে যাওয়া স্থান দ্রুত মেরামতের দাবী জানান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, চলমান পাহাড়ী ঢলে ৩ শত ৭৫ হেক্টর আমন ফসল তলিয়ে আছে। কৃষি অফিসারের এ তথ্য জনপ্রতিনিধি ও সাধারন কৃষকরা মানতে নারাজ। কৃষকদের দাবী হাজার হাজার হেক্টর জমি তলিয়ে রয়েছে। বন্যা দুর্গত ইউনিয়ন সমূহে কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তাগণ মাঠে নেই বলে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তার কাছে মুঠোফোনে অভিযোগ করেন দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো: ফজলুল হক। এ সময় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ধোবাউড়া উপজেলার কৃষি জমি নতুন করে প্লাবিত হওয়ার বিষয়টি অবগত নন বলে ইউপি চেয়ারম্যানকে জানান।

স্টাফ রিপোর্টার: ময়মনসিংহ জেলার সিমান্তবর্তী ধোবাউড়া উপজেলায় পাহাড়ী ঢলে নতুন করে নিতাই নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আজ সকাল থেকে পানি বিপদ সীমার ১৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ৮ সেপ্টেম্বর রাত থেকে ভারতীয় মেঘালয় থেকে আসা নিতাই নদীর পানিতে ঘোষগাঁও ইউনিয়নের জিগাতলা, ভূঁইয়াপাড়া, ঘোষগাঁও, ভালুকাপাড়া, রায়পুর গ্রাম এবং দক্ষিন মাইজ পাড়া ইউনিয়নে কালিকাবাড়ী ভল্লবপুর নয়াপাড়া, দিগলবাগ, পঞ্চনন্দপুর, সোহাগীপাড়া, খাগগড়া গ্রাম, গামারীতলা ইউনিয়নের মন্দিরকোনা, পঞ্চনন্দপুর, গৌরিপুর, গামারীতলা ও রনসিংহপুর গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ভারপ্রাপ্ত) ফরিদা ইয়াছমিন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুহাঃ জাকির হোসেন নতুন করে প্লাবিত হওয়া এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এসময় ধোবাউড়া প্রেসক্লাব সেক্রেটারী সিরাজুল ইসলাম, সাংবাদিক কবির উদ্দিন, সাংবাদিক আবুল হাশেম সেখানে উপস্থিত ছিলেন। ঘোষগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান শামছুল হক জানান, নিতাই নদীর পানি বাড়ছে ইতিমধ্যে ঘোষগাঁও শেরে বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়, জিগাতলা, ভূইয়াপাড়াসহ বিভিন্ন গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, গত ১১ আগস্টের বন্যায় ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতির পর কৃষকরা অনেক কষ্টে আমন ধান রোপন করেছিল।এখন নতুন করে প্লাবিত হলে সর্বনাশ হয়ে যাবে। এলাকাবাসী নিতাই নদীর ১৭টি স্থানে ভেঙ্গে যাওয়া বেড়ীবাঁধ দ্রুত পূণ:নির্মাণ করার দাবী জানিয়েছেন।

স্টাফ রিপোর্টার: ধোবাউড়া উপজেলা থেকে সব ধরনের কার্যক্রম গুটিয়ে নিল ওয়ার্ল্ড ভিশন,বাংলাদেশ। আজ সকাল ১১ টায় ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ ধোবাউড়া এডিপির ‘ধন্যবাদ জ্ঞাপন কমিটি’র আয়োজনে ধোবাউড়ায় ওয়ার্ল্ড ভিশনের ৪৫ বছরের কার্যকমের উপর ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান ধাইরপাড়া ধর্মপল্লীর মাঠে বিশাল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্টানে ধোবাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া নির্বাচনী এলাকার সাংসদ মি: জুয়েল আরেং এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ধোবাউড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি মোহাম্মদ মজনু মির্ধা, প্রধান মন্ত্রীর শিক্ষা সহায়ক ট্রাস্ট, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ব্রেঞ্জন চাম্বুগং, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল খান, ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা খাতুন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক প্রিয়তোষ বিশ্বাস বাবুল, অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন, ওয়ার্ল্ড ভিশনের সিনিয়র ডিরেক্টর অব্ অফারেশনস্ এন্ড রিসোর্চ ম্যানেজমেন্ট জেরাড ব্যরেন্ডস্, ওয়ার্ল্ড ভিশনের গ্রেটার ময়মনসিংহের ফির্ল্ড ডিরেক্টর সাগর মারান্ডী। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের সিনিয়র এডভাইজার ও ন্যাশনাল ডিরেক্টর মোঃ ইসতিয়ার আহামেদ, ধন্যবাদ ঞ্জাপন উদযাপন কমিটির আহবায়ক রেভারেন্ড প্রশান্ত সরকার, অফিসার ইনচার্জ শওকত আলম পিপিএম, ভোরের আলো শিশু ফোরামের নেত্রী মীম আক্তার। সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন ধোবাউড়া এডিপির ম্যানেজার ইউজিন রড্রিক্স।

উল্লেখ্য, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরবর্তী ১৯৭২ সনে আনুষ্ঠানিকভাবে ধোবাউড়া উপজেলায় চাইল্ড স্পন্সরশীপ প্রোগাম- এর মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তীতে ১৯৮৩ সালে ইন্টিগ্রেটেড কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এবং ১৯৯৯ সালে এরিয়া ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে ধোবাউড়া এলাকায় ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ তার উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু করে। এই উন্নয়ন যাত্রায় উল্লেখযোগ্য কর্মসূচি সমূহ হলো – শিশু ও বয়স্ক শিক্ষা,স্বাস্থ্য,পুষ্টি,পয়ঃনিষ্কাশন,এইচআইভি এইডস,কৃষি ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন,উন্নয়ন দল গঠন,কমিউনিটি ভিত্তিক সমবায় সমিতি গঠন,শিশু সুরক্ষা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাসহ বহুবিধ উন্নয়ন কার্যক্রম। ওয়ার্ল্ড ভিশন এসমস্ত কার্যক্রম সরকার ও অন্যান্য এনজিওর সাথে সমন্বিতভাবে বাস্তবায়ন করেছে। দীর্ঘ ৪৫ বছরে ধোবাউড়া এডিপি পথ চলায় জনগনের আর্থ- সামাজিক উন্নয়নে ব্যাপক অবদার রেখে বিদায়ের ঘন্টা বাজিয়ে আজ ধোবাউড়া উপজেলায় তাদের কার্যক্রম সমাপ্তি টানে।

সর্বশেষ সংবাদ

0 88
স্টাফ রিপোর্টার: ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার ধোবাউড়া বহুমুখী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় দলটি উপজেলা পর্যায়ে চেম্পিয়ন হবার পর জেলাতে তাদের নৈপূণ্য ধরে রেখেছে। জেলা পর্যায়ে প্রথমে...

বাণিজ্য

0 762
ধোবাউড়া সংবাদদাতা: গতকাল শুক্রবার বেলা ২টায় ধোবাউড়া বাজারে সিএনজি অটোটেম্পু-মাহিন্দ্র শ্রমিক ইউনিয়ন ধোবাউড়া-উপজেলা শাখার উদ্যোগে শ্রমিক কার্ড বিতরণ ও পরিচিতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।...
Web Design BangladeshBangladesh Online Market