ফুলেল শুভেচ্ছা সিক্ত হয়ে চির নিদ্রায় সমাজকল্যান প্রতিমন্ত্রী

ফুলেল শুভেচ্ছা সিক্ত হয়ে চির নিদ্রায় সমাজকল্যান প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার: সাধারণ জনগন ও দেশবাসীর ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয়ে আজ পৃথিবীর আলো বাতাসকে বিদায় জানিয়ে ওপারে চলে গেলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যান প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট প্রমোদ মানকিন এমপি। Promode Mankin MPগতকাল জাতীয় সংসদ ভবনে প্রতিমন্ত্রীর মরদেহে স্পিকার, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রীপরিষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পন এবং গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিমন্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানাতে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। অাজ সকাল থেকে জনতার স্রোত ফুলে ফুলে তাঁর কফিন সাজিয়ে তোলে।  হালুয়াঘাট উপজেলা পরিষদের  জনপ্রিয় চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ফারুক খান এবং ধোবাউড়া উপজেলা পরিষদের  জনপ্রিয় চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা হাজী মোহাম্মদ মজনু মৃধা প্রতিমন্ত্রীর লাশগ্রহন থেকে শুরু করে প্রতিটি প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন। আজ সকাল থেকেই বিড়ইডাকুনি উচ্চ বিদ্যালয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানেও উপস্থিত ছিলেন এই দুই আলোচিত মুখ।Mojnu1 শুধু রাজনীতিবিদ হিসেবেই নন একজন শিক্ষক হিসেবে শেষবারের মতো প্রতিমন্ত্রীকে একনজর দেখতে শেষ কৃত্যানুষ্ঠানে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ঢল নামে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিব, অনেক কেন্ত্রীয় নেতা, জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি’র নেতা কর্মীরা এ সময় উপস্থিত হয়ে প্রতিমন্ত্রীর প্রতি শেষবারের মতো শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শেষে তার লাশ পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। উল্লেখ্য, প্রতিমন্ত্রীর মৃত্যুতে অভিভাবকশুন্য ময়মনসিংহ ১ আসনটির জনগণ । গত নির্বাচনে এডভোকেট প্রমোদ মানকিন এর সাথে দলীয় মনোনয়ন দাবী করেছিলেন হালুয়াঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ফারুক খান ও ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন। তবে শেষ পর্যন্ত অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন সরে আসলে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন দুইজন।এবার মনোনয়ন প্রত্যাশীর সংখ্যা বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। তবে রাজনীতিতে এতটা সক্রিয় না থাকলেও প্রতিমন্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের মধ্য থেকে কেউ এবার এই আসনের মনোনয়ন চাইতে পারে । পরিস্থিতি বিবেচনায় বিএনপি বা জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশগ্রহন না করলে এবার এই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায়না। জনগনের প্রত্যাশা পূরণে সম্ভাব্য উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন কে পেতে পারেন তা নিয়ে ইতিমধ্যে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে নানামুখী আলোচনা শুরু হয়ে গেছে।

কোন মন্তব্য নেই

Leave a Reply