ধোবাউড়ায় অতিদরিদ্রের কর্মসৃজন প্রকল্পে দুর্নীতির মহোৎসব, তদারকি নেই

ধোবাউড়ায় অতিদরিদ্রের কর্মসৃজন প্রকল্পে দুর্নীতির মহোৎসব, তদারকি নেই

0 398

স্টাফ রিপোর্টার: ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলায় অতিদরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির ২য় পর্যায়ে চলছে দুর্নীতির মহোৎসব। এই প্রকল্পে শ্রমিকের বদলে কাজ করছে ভেকু। কোন কোন প্রকল্প ১ম পর্যায়ের টাকা দিয়েই অগ্রিম বাস্তবায়ন করে রাখারও অভিযোগ ওঠেছে। শ্রমিকবিহীন এসব প্রকল্পসমূহে প্রকল্প সভাপতিরা ভেকু দিয়ে চুক্তিতে মাটি কাটাচ্ছে।

এমনি একটি প্রকল্প ১ নং দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নের ‌’কাশিপুর মগবুলের বাড়ী হতে শহীদুলের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ”। এই প্রকল্পে তালিকাভূক্ত শ্রমিকের সংখ্যা ৯০ জন এবং মোট ৭লাখ ২০ হাজার টাকা বরাদ্ধ রয়েছে বলে জানা যায়। প্রকল্প সভাপতি ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য রূপালি চিরান। জানা গেছে, ১৭শত টাকা ঘন্টা চুক্তিতে ভেকু দিয়ে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় কাজ শুরু হয়। আজ রবিবার বিকেল ৫টার মধ্যে কাজ শেষ হয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। বিশ্বস্থ সূত্র জানায়, এই প্রকল্পে সম্পূর্ণ রাস্তাটি নির্মাণে মাত্র ২৫হাজার টাকার চুক্তি হয়েছে ভেকু মালিকের সাথে।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য প্রকল্প সভাপতি রূপালি চিরানের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তাছাড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুহ: জাকির হোসেন ও উপ সহকারী প্রকৌশলী মজনু মিয়ার বক্তব্য জানতে তাদের মুঠোফোনে কল দিলেও তারা রিসিভ করেন নি।

বিষয়টি জেলা ত্রাণ ও পুণর্বাসন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেনকে অবহিত করলে তিনি তা খতিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন। পাশাপাশি কোন প্রকল্পের ব্যাপারে অভিযোগ থাকলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে বিষয়গুলো অবহিত করার জন্য আহ্বান জানান।

ধোবাউড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি এডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব এ ব্যাপারে বলেন, ‘সাংবাদিকরা সব সময় সত্য প্রকাশ করবে এটাই স্বাভাবিক।’ তিনি সকলকে উন্নয়নের পক্ষে কলম ধরার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ধোবাউড়া উপজেলায় অতিদরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির ২য় পর্যায়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরদারী না থাকায় সরকারী অর্থ হরিলুটের একটা নিরাপদ ক্ষেত্র তৈরী হয়েছে বলে মনে করেন বিশিষ্টজনেরা।

 

কোন মন্তব্য নেই

Leave a Reply